Featured Posts

[Travel][feat1]

How create Gmail account in Bengali ( কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাবেন )

November 25, 2019

How create Gmail account in Bengali ( কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাবেন ) :

Gmail account


আপনি কি আপনার জন্য একটা জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাতে চান ? যে কোন কম্পানি বা ব্যক্তির সাথে ইমেইল করতে হলে ইমেইল আইডি চাই সেটা কি আপনার কাছে নেই ? ইমেল আইডি কি এবং কিভাবে তৈরি করতে হয় সেটা আপনার জানা নেই বা জিমেইল আইডি এর কি কি উপকারিতা তা জানা নেই ।

তাহলে আপনার চিন্তার কোনো প্রয়োজন নেই আজকের এই  how create Gmail account in Bangla ( কিভাবে জিমেইল একাউন্ট বানাবেন ) টিউটরিয়াল থেকে জানতে পারবেন কিভাবে জিমেইল আইডি তৈরি করতে হয়, কিভাবে অন্যকে মেইল পাঠাতে হয় এবং জিমেইল আইডি থাকলে তার কি কি উপকারিতা পাবেন।
তাহলে এটি জানতে হলে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ধাপে ধাপে এই আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে । এই আর্টিকেলটি পড়ার পরে আপনি নিজেই নিজের ইমেইল আইডি তৈরি করতে পারবেন ।


জিমেইল একাউন্ট কিভাবে তৈরি করবেন ( how create Gmail account in Bangla ) :


জিমেইল অ্যাকাউন্ট তৈরি করার পদ্ধতি খুবই সহজ নিচে ধাপে ধাপে বিবরণ করলাম মনদি দেখাবেন ‌ ।

Step 1 : সবার প্রথমে যে কোন একটি ব্রাউজার ওপেন করতে হবে তারপর গুগল এ গিয়ে সার্চ করতে হবে "create gmail account"

Step 2 : তারপর সার্চ রেজাল্টে সর্বপ্রথম আর্টিকেল "Create a Gmail account - Gmail Help - Google Support" এই লিঙ্কটিতে ক্লিক করবেন ।

Step 3 : তারপর "create an account" এ ক্লিক করতে হবে ।

Step 4 : তারপর একটি অপশন আসবে "for myself" এবং  "to manage my business" এখানে আপনাকে "for myself"  এ ক্লিক করতে হবে ।

Step 5 : তারপর আপনাকে আপনার নাম লিখতে হবে এখানে "first name" এর জায়গায় আপনার নাম এবং "Last name" এর জায়গায় আপনার পদবী লিখে নিচের নেক্সট বাটনে ক্লিক করুন ।

Step 6 : তারপর আপনাকে আপনার জন্ম তারিখ ( Date of Birth ) এবং লিঙ্গ ( Gender ) লেখার পরে নিচে নেক্সট বাটনে ক্লিক করতে হবে ।

Step 7 : তারপর গুগল আপনাকে কিছু জিমেইল অ্যাড্রেস সাজেস্ট করবে যেমন - "example3647@gmail.com" এটি যদি আপনার পছন্দ না হয় তাহলে নিচে "create your own Gmail address" এ ক্লিক করে আপনার পছন্দ মতন জিমেইল এড্রেস নিতে পারেন , তারপর আপনাকে নিচে নেক্সট বাটনে ক্লিক করতে হবে ।

Step 8 : তারপর আপনাকে আপনার জিমেইল একাউন্টের পাসওয়ার্ড দিতে  বলবে, মনে রাখবেন পাসওয়ার্ড একটু স্ট্রং রাখবেন যাতে আপনার অ্যাকাউন্ট কেউ এক্সেস করতে না পারে । এর জন্য আপনি লেটার , নাম্বার , এবং স্পেশাল ক্যারেক্টার ইউজ করতে পারেন ।
যেমন - Example194@*# , এখানে বড় হাতের অক্ষর ছোট হাতের অক্ষর সংখ্যা এবং স্পেশাল ক্যারেক্টার সবকিছুই রয়েছে এরকম আপনি আপনার মন পছন্দ পাসওয়ার্ড দিয়ে নিচে নেক্সট বাটনে ক্লিক করবেন ।

Step 9 :  তারপর আপনাকে আপনার ফোন নাম্বার দিতে বলবে এটি না দিলেও হবে কিন্তু আমি বলব আপনি আপনার ফোন নাম্বার দিয়ে রাখবেন কারণ আপনি যদি কোন কারনে কোন সময় আপনার একাউন্টের পাসওয়ার্ড ভুলে যান তাহলে মোবাইল নাম্বার এর দ্বারা আপনি পাসওয়ার্ড রিকভার করতে পারবেন । আপনার মোবাইল নাম্বার ইন্টার করার পরে নিচে নেক্সট বাটনে ক্লিক করবেন ।

Step 10 : আপনার সামনে একটি "terms and condition" পেজ ওপেন হবে সেদিকে আপনি পড়তেও পারে নাও পড়তে পারেন, তারপর নিচে "I agree" বাটনে ক্লিক করবেন ।

ব্যাস এইবারে আপনার জিমেইল অ্যাকাউন্ট সম্পূর্ণভাবে তৈরি হয়ে গেল এবারে আপনি যে কোন ব্যক্তির সাথে ইমেইল করতে পারবেন এবং আপনাকেও যে কেউ ইমেইল করতে পারবে আপনার জিমেইল আইডির মাধ্যমে ।
এইবার জেনে নিন কিভাবে আপনি কাউকে ইমেইল পাঠাতে পারবেন আপনার জিমেইল একাউন্টের দ্বারা , এজন্য আপনাকে নিচে দেওয়া ধাপগুলি মনোযোগ সহকারে দেখতে হবে ।

How send email with anyone in Bengali ( কিভাবে যেকোনো ব্যক্তিকে আপনি ইমেইল করতে পারবেন ) :


এর জন্য আপনাকে যাকে আপনি ইমেইল পাঠাবেন তার জিমেইল এড্রেস  জানতে হবে, যেমন আপনাকে যদি কেউ ইমেইল করবে তাহলে আপনাকে আপনার জিমেইল এড্রেস যেটা আপনি তৈরি করলেন সেটা তাকে জানতে হবে ।

Step 1 : এর জন্য আপনাকে ফোনে জিমেইল অ্যাপস ওপেন করতে হবে এবং যদি আপনি কম্পিউটারে করেন তাহলে গুগলে গিয়ে সার্চ করবেন জিমেইল এবং আপনার ইমেইল এড্রেস এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করবেন ।

Step 2 : তারপর বাম দিকে send এ ক্লিক করে একেবারে নিচে ডান দিকে একটি প্লাস সাইন (+) এ ক্লিক করতে হবে ।

Step 3 : তারপর আপনার কাছে তিনটি অপশন আসবে "To" , "Subject" এবং "compose email" এই "To" এর জায়গায় আপনি যাকে ইমেইল পাঠাবেন তার ইমেইল এড্রেস লিখতে হবে তারপর  "Subject" এর জায়গায় আপনি কি বিষয়ে ইমেইল করছেন সেটা লিখতে হবে এবং "compose email" এর জায়গায় পুরো মেসেজটা লিখতে হবে । তারপর উপরে ডানদিকে তীর চিহ্নের মতো একটা সাইন থাকবে সেটিতে ক্লিক করলে আপনার ইমেল তার কাছে পৌঁছে যাবে ।

একটা কথা মনে রাখবেন ইমেইল পাঠানোর সময় আপনার ইন্টারনেট কানেকশন অন চচরাখতে হবে না হলে কিন্তু ইমেইল সেন্ড ফেল হয়ে যাবে ।


Benefits of G-mail id in Bengali ( জিমেইল আইডি এর উপকারিতা ) :


দেখুন জিমেইল আইডির অনেক উপকারিতা আছে তার মধ্যে কিছু আমি তুলে ধরেছি

i) সর্বপ্রথম যেমন আপনার যদি জিমেইল আইডি না থাকে তাহলে আপনি কোন কোম্পানিকে বা কোন ব্যক্তিকে  ইমেইল পাঠাতে পারবেন না বা কেউ আপনাকেও ইমেইল পাঠাতে পারবে না, তাই জিমেইল আইডি প্রয়োজন ।

ii) যদি আপনার জিমেইল আইডি না থাকে তাহলে আপনি প্লে স্টোর থেকে কোন কিছু অ্যাপস ডাউনলোড করতে পারবেন না এবং কোন অ্যাপ আপডেট করতে পারবেন না, তাই জিমেইল আইডি প্রয়োজন ।

iii) জিমেইল আইডি না থাকলে আপনি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করতে পারবেন না এবং ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন না । আরো নানান ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন যদি আপনার জিমেইল আইডি না থাকে,  তাই জিমেইল আইডি প্রয়োজন ।


আশা করছি আপনি আজকের এই  How create Gmail account in Bengali ( কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাবেন )  টিউটোরিয়াল থেকে জানতে পারলেন কিভাবে আপনি আপনার জিমেইল আইডি তৈরি করতে পারবেন , এবং কিভাবে আপনি কাউকে ইমেইল পাঠাতে পারবেন, এবং কি কি উপকারিতা জিমেইল আইডির । 

আশা করছি টিউটোরিয়ালটি আপনার হেল্প ফুল হয়েছে এটি বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করবেন এবং কোন রকম প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন আমি কমেন্টের রিপ্লাই দেওয়ার চেষ্টা করব । ধন্যবাদ ।
How create Gmail account in Bengali ( কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাবেন ) How create Gmail account in Bengali ( কিভাবে জিমেইল অ্যাকাউন্ট বানাবেন ) Reviewed by specialwish on November 25, 2019 Rating: 5

What Difference Between Laptop vs Desktop in bangla কোনটি কেনা উচিত ?

November 25, 2019

What Difference Between Laptop vs Desktop in bangla কোনটি কেনা উচিত ?

Different between laptop vs Desktop


যখন আমরা প্রথম কম্পিউটার কেনার কথা ভাবি তখন আমাদের মনের মধ্যে কিছু কনফিউশন আছে যেমন - ল্যাপটপ নেব না ডেক্সটপ নেব , এই দুটির মধ্যে আসলে কি পার্থক্য ? যদি ডেক্সটপ ভালো তো কেন ভালো ?  আর যদি ল্যাপটপ ভালো তো কেন ভালো ? এমন আরো অনেক প্রশ্ন আমাদের মনে আসে তো চলুন আজকের এই What Difference Between Laptop and desktop in bangla আর্টিকেল থেকে জানতে পারবো যে আমাদের কাজের অনুসারে কোনটি নেওয়া উচিত | ল্যাপটপ vs ডেক্সটপ কোনটি নেওয়া ভালো হবে ?

ডেক্সটপ নিবেন না ল্যাপটপ নিবেন সেটা তো আপনার প্রয়োজনীয়তার উপর নির্ভর করে, আপনি কোন কাজের জন্য জিনিসটা কিনবেন জিনিসটাকে নিয়ে ট্রাভেল করবেন না অফিসে বা বাড়িতে বসে কাজ করবেন,  যদি আপনি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ট্রাভেল করেন তাহলে আপনার ল্যাপটপ নেওয়া ভালো হবে এবং যদি আপনি বাড়িতে বা অফিসে বসে কাজ করেন তাহলে আপনার ডেক্সটপ নেওয়া ভালো হবে, তো এখন ডেস্কটপ নিব না ল্যাপটপ নিব সেটা সিদ্ধান্ত করার আগে আমাদের জেনে নিতে হবে এই দুটির মধ্যে আসলে পার্থক্য কি যদি আপনি এই দুটির পার্থক্য জানতে পারেন তাহলে আপনার দুটির মধ্যে কোনটা নিবেন তা নির্ণয় করতে সুবিধা হবে ।

ডেক্সটপ আর ল্যাপটপ এর মধ্যে কি পার্থক্য ( Difference Between Laptop and Desktop )



১. পর্টাবিলিটি ( Portability )

পোর্টেবিলিটি এর মানে হচ্ছে যে আপনি যেটিকে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় খুব সহজে নিয়ে যেতে পারবেন,  আপনারা জানেন যে ডেক্সটপকে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নিয়ে যেতে কত ঝামেলা হয় সে ক্ষেত্রে যদি আপনি ল্যাপটপ নেন তাহলে আপনি একটি ব্যাগের মধ্যে রেখে যেখানে খুশি নিয়ে যেতে পারেন এবং সেখানে ব্যবহার করতে পারেন, এটি একটি পার্থক্য ল্যাপটপ এবং ডেস্কটপ এর মধ্যে
তো কম্পিউটার কেনার সময় একটা কথা মনে রাখবেন - যদি আপনি প্রতিনিয়ত ট্রাভেল করেন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যান এবং সেখানে আপনার কাজ কম্পিউটারের মাধ্যমে সম্পূর্ণ করতে হয় এবং স্কুলে বা কলেজে পড়াশোনা করেন সে ক্ষেত্রে আপনার ল্যাপটপ নেওয়া উচিত, আর যদি আপনার অফিসের কাজ থাকে বা ঘরে বসে সমস্ত কাজ করেন কম্পিউটারকে বাইরে নিয়ে যাওয়ার আপনার কোন প্রয়োজন নেই সে ক্ষেত্রে আপনার ডেক্সটপ কেনা উচিত ।


২. দাম ( Price )

ল্যাপটপ বা ডেস্কটপ কেনার সময় আপনাকে একটু দামের দিকে ধ্যান রাখতে হবে এখানে ল্যাপটপের তুলনায় ডেক্সটপের দামের পার্থক্য দেখতে পাবেন এখানে দামে তুলনামূলকভাবে ডেক্সটপের কম ।
উদাহরণস্বরূপ যেমন মনে করুন আপনার বাজেট ৪০ হাজার টাকা এবং এতে আপনি একটি ল্যাপটপ নিবেন কিন্তু আপনার স্পেসিফিকেশন পছন্দ হচ্ছে না সেক্ষেত্রে আপনি ডেক্সটপ কিনতে পারেন যেখানে আপনি ল্যাপটপের থেকে বেশি স্পেসিফিকেশন বা ফিচারস পাবেন সেম বাজেটের মধ্যে, তো সব সময় মনে রাখবেন ল্যাপটপ এর থেকে ডেক্সটপ এর দাম কিছুটা হলেও কম ।


৩. আপগ্রেটিং পার্টস ( Parts Upgrading and Exchange )


এটি একটি খুব বড় পার্থক্য ডেস্কটপ এবং ল্যাপটপের মধ্যে যদি আপনি ল্যাপটপকে কিছুদিন ব্যবহারের পরে সেটিকে আপগ্রেড করতে চান পার্টস পরিবর্তন করতে চান সে ক্ষেত্রে আপনি সেটি পরিবর্তন করতে পারবে না, হ্যাঁ কিছু জিনিস আপগ্রেড করতে পারবেন কিন্তু সে ক্ষেত্রে ডেক্সটপ হলে আপনি তার সমস্ত পার্টস পরিবর্তন করতে পারবেন এবং ডেক্সটপ কে আরো পাওয়ারফুল করে তুলতে পারবেন ।

উদাহরণস্বরূপ মনে করুন আপনার বাজেট কম এবং আপনি একটি ডেক্সটপ নিয়েছেন এবং সেটি কিছুদিন ব্যবহারের পরে স্লো হতে লাগল, তখন আপনার কাছে টাকা  আছে সেটিকে আপগ্রেড করার জন্য তখন আপনি সেটিকে সম্পূর্ণ আপগ্রেড করতে পারবেন যেমন - তার PROCESSOR, RAM, HARD DISK, GRAPHICS CARD  সমস্ত কিছু পরিবর্তন করতে পারবেন, কিন্তু যদি আপনি ল্যাপটপ নিতেন তাহলে আপনি সমস্ত কিছু আপগ্রেড করতে পারবেন না শুধুমাত্র RAM এবং HARD DISK পরিবর্তন করতে পারবেন ।


৪. ডিসপ্লে স্ক্রীন সাইজ ( Display and Screen Size )

ডেক্সটপ নিলে আপনি আপনার পছন্দ অনুসারে ডিসপ্লে মানে মনিটর লাগাতে পারবেন , মনে করুন এখন আপনার বাজেট কম তো আপনি একটি ছোট মনিটর কিনে ব্যবহার করতে পারেন এবং পরে আপনি সেটিকে ভিডিও এডিটিং‌ এর কাজে ব্যবহার করতে চান সে ক্ষেত্রে ডিসপ্লে সাইজ একটু বড় হওয়া প্রয়োজন এবং গেমিং করার কাজে যদি ব্যবহার করেন তাহলে আপনার স্ক্রিন সাইজ একটু বড় দরকার সে ক্ষেত্রে আপনি আপনার ইচ্ছামত যত বড় মনিটর লাগাতে পারেন ।

এক্ষেত্রে আপনি যদি ল্যাপটপ নেন তাহলে ল্যাপটপ এ ফিক্স সাইজের  স্ক্রিনটি লাগানো থাকে যেমন ১৩ ইঞ্চি, ১৫.৬ ইঞ্চ ইত্যাদি সেটিকে আপনি পরিবর্তন করতে পারবেন না  এই অনুসারে আপনার ডেক্সটপ নেওয়া ভালো হবে ।


৫. পারফরম্যান্স ( Performance )

যখন আপনি কম্পিউটার নেওয়ার কথা ভাবেন সেটি ডেস্কটপ হোক বা ল্যাপটপ সব সময় আপনি একটা কথা ভাবেন যে সেটির পারফরম্যান্স যেন ভালো হয়, এই বিষয়ে একটা কথা আপনাকে জানিয়ে রাখি যে সবসময় ডেক্সটপের পারফরম্যান্স ল্যাপটপের তুলনায় সামান্য ভালো , যদি আপনি হেভি কাজ করতে চান যেমন- আপনার কাজ ভিডিও এডিটিং করা গেম খেলা গেমিং এর জন্য কিনতে চাইছেন তাহলে আপনার ডেক্সটপ নেওয়া ভালো হবে, আর যদি আপনি সামান্য হালকা কিছু কাজের জন্য নেবেন যেমন এমএস ওয়ার্ড, এমএস এক্সেল, ইন্টারনেট সার্চিং , ভিডিও প্লে  ইত্যাদি সেক্ষেত্রে আপনার ল্যাপটপ নেওয়া খুবই ভালো হবে ।

Laptop vs Desktop কোনটি নেবেন ?

অবশেষে আমি বলবো যে ল্যাপটপ নেওয়ার মেন কারণ হচ্ছে পর্টাবিলিটি যদি আপনি এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ট্রাভেল করেন এবং ল্যাপটপ না হলে আপনার কাজ সম্পূর্ণ হবে না সেক্ষেত্রে আপনাকে ল্যাপটপ নেওয়া প্রয়োজন কিন্তু যদি আপনার কাজ খুব হেভি হয় যেমন ভিডিও এডিটিং, গেমিং এবং কিছু হেভি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে কাজ এবং পরবর্তী সময় যদি আপনি আপনার ডিভাইসকে আপগ্রেড করতে চান তাহলে আপনার ডেক্সটপ নেওয়া সবচেয়ে ভালো হবে , ল্যাপটপ এবং ডেস্কটপ দুটি তাদের জায়গা অনুসারে ভালো এবারে আপনাকে আপনার কাজের প্রয়োজনীয়তা অনুসারে কোনটা নিবেন তা পছন্দ করতে হবে ।

আশা করছি আপনি এই What Difference Between Laptop and desktop in bangla আর্টিকেল থেকে বুঝতে পারলেন আপনার কাজের অনুসারে কোনটি নেওয়া সবচেয়ে ভালো হবে, ভালো লাগলে এই আর্টিকেলটি আপনার বন্ধুর সঙ্গে শেয়ার করবেন , ধন্যবাদ ।
What Difference Between Laptop vs Desktop in bangla কোনটি কেনা উচিত ? What Difference Between Laptop vs Desktop in bangla কোনটি কেনা উচিত ? Reviewed by specialwish on November 25, 2019 Rating: 5
Powered by Blogger.